পৃথিবীর বিখ্যাত কিছু

পৃথিবীর বিখ্যাত কিছু Industrial Espionage/Corporate Spying/Economic Espionage মুভির তালিকা (পর্ব-০১)

হ্যালো বন্ধুরা, সবাই কেমন আছেন? আশা করি সবাই ভালো আছেন, সুস্থ আছেন এবং নিরাপদে আছেন। আজকে আপনাদের জন্য পৃথিবীর বিখ্যাত কিছু Industrial Espionage/Corporate Spying/Economic Espionage মুভির তালিকা নিয়ে হাজির হয়েছি। আশা করি আপনারা সকলে শেষ পর্যন্ত পোস্ট টি পড়বেন। চলুন তাহলে শুরু করা যাক।

পৃথিবীতে ব্যবসা বাণিজ্য যেদিন থেকে শুরু হয়, প্রতিযোগিতা যখন থেকে শুরু হয় তখন থেকেই Industrial Espionage/Corporate Spying/Economic Espionage শুরু হয়। প্রতিযোগী কোম্পানির/দেশের গুরুত্বপূর্ণ Trade Secrets, Product Secrets ইত্যাদি চুরি করে সেগুলোকে নিজ কোম্পানির/দেশের জন্য ব্যবহার করাকে Industrial Espionage/Corporate Spying/Economic Espionage বলে। এই কাজের জন্য পৃথিবীর প্রায় সকল বড় কোম্পানিই প্রাইভেট ডিটেকটিভ অথবা রিসার্চ ফার্ম কে Hire করে। যদিও যে কোনো দেশের আইনে এটি অপরাধ, তারপরেও কিন্তু থেমে নেই এটি। দেখুন কিছু বিখ্যাত Industrial Espionage এর ঘটনাঃ

ক. আশির দশকে Hitachi ও তার ২২ জন সিনিয়র কর্মকর্তা IBM Computer এর Trade Secrets চুরির দায়ে অভিযুক্ত হন।

খ. ১৯৯৭ সালে Steven L. Davis নামে ৪৭ বছর বয়সী এক ব্যক্তি বিখ্যাত Gillette কোম্পানির একটি নতুন শেভিং সিস্টেম এর তথ্য চুরি করার দায়ে গ্রেফতার হন এবং Espionage এর জন্য ১৫ বছর সাজাপ্রাপ্ত হন। তিনি Gillette এর নতুন শেভিং সিস্টেমের Technical Drawings গুলো Gillette এর প্রতিযোগী Warner-Lambert Co, Bic ও American Safety Razor এর কাছে Fax ও Email করে পাঠিয়ে দেন Gillette Market এ ঐ Shaving System Launch করার আগেই।

গ. ৩০ বছর ধরে কাজ করা Eastman Kodak Company এর কর্মী Harold Worden Kodak এর প্রতিযোগীদের কাছে কিছু Confidential Documents বিক্রি করে দেয় যার জন্য ১৯৯৭ সালে ১৫ মাসের সাজাপ্রাপ্ত হন।

ঘ. ২০০০ সালে Oracle Microsoft এর Sensitive Technical Information চুরি করার জন্য দুটি Research firm Hire করে। এই দুই Tech Giant এর মামলা অনেক বছর গড়ায়।

ঙ. ২০১১ সালে কিছু চাইনিজ হ্যাকাররা পৃথিবীর বিখ্যাত ৫টি তেল কোম্পানির খুবই গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রতিযোগীদের কাছে অত্যন্ত চড়া মূল্যে বিক্রি করে দেয়। এই Operation এর নাম ছিলো Operation Night Dragon।

উপরিউক্ত ঘটনাগুলো থেকে বোঝা যায় যে কতটা কুৎসিত প্রতিযোগিতা এই Industrial Espionage এ। চলুন দেখি রূপালী পর্দায় কিভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এটিকেঃ

১. Cypher (2002)

ক্যাটাগরিঃ Mystery, Sci-Fi, Thriller
IMDB রেটিংঃ ৬.৮
পুরস্কারঃ Brussels International Festival of Fantasy Film (BIFFF) ২০০৩ এ Golden Raven বিজয়ী।
কাহিনী সংক্ষেপঃ একজন ছাপোষা গোবেচারা কর্মচারী কে Hire করা হয় পৃথিবীর সকল Conventions, Fare গুলো Attend করে প্রতিযোগী প্রতিষ্ঠানগুলোর বিভিন্ন Trade Secrets চুরি করার জন্য।
কি চুরি করেঃ Digicorp এর প্রতিযোগী প্রতিষ্ঠানদের Trade Secrets।
কে চুরি করেঃ Morgan Sullivan

২. Duplicity (2009)

ক্যাটাগরিঃ Comedy, Crime, Romance
IMDB রেটিংঃ ৬.১
পুরস্কারঃ Golden Globes, 2010 এ জুলিয়া রবার্টস এর Best Actress Award প্রাপ্তি।
কাহিনী সংক্ষেপঃ একজন MI6 ও একজন CIA এর এজেন্ট দুটো বড়ো কর্পোরেশনের হয়ে Industrial Espionage এর কাজ শুরু করে। পূর্বের শত্রুতা ফিরে আসে তাদের মধ্যে এবং শুরু করে একে অন্যের তথ্য চুরি করা। একসময় দুজন প্রেমেও পড়ে।
কি চুরি করেঃ আলোড়ন জাগানিয়া একটি নতুন Product এর Details ও Customer List।
কে চুরি করেঃ Ray ও Claire

৩. Inception (2010)

ক্যাটাগরিঃ Action, Adventure, Sci-Fi
IMDB রেটিংঃ ৮.৮
পুরস্কারঃ ৪টি অস্কার ও অসংখ্য আন্তজাতিক পুরস্কার প্রাপ্তি।
কাহিনী সংক্ষেপঃ ড্রিম শেয়ারিং টেকনোলজি ব্যবহার করে বিভিন্ন কর্পোরেট চুরি করা লোককে দায়িত্ব দেয়া হয় বিপরীতভাবে একজন CEO এর মাথায় নতুন আইডিয়া ঢুকানোর। অসাধারণ মুভি।
কি চুরি করেঃ বিভিন্ন কর্পোরেট সিক্রেটস
কে চুরি করেঃ Leonardo DiCaprio

৪. Paranoia (2013)

ক্যাটাগরিঃ Drama, Thriller
IMDB রেটিংঃ ৫.৭
পুরস্কারঃ Golden Trailer Awards 2014 বিজয়ী।
কাহিনী সংক্ষেপঃ দুটি Tech Giants একটি নতুন প্রোটোটাইপ চুরি করা ও ম্যানিপুলেট করার জন্য একজন সুদর্শন প্রোগ্রামার কে Hire করে এবং যে কোনো মূল্যে একে অন্যকে টেকওভার করতে চায়। Harison Ford ও Gary Oldman এর অসাধারণ অভিনয়।
কি চুরি করেঃ নতুন একটি মোবাইলের প্রোটোটাইপ ও টেকনিক্যাল সিক্রেটস।
কে চুরি করেঃ Liams Hemsworth<

৫. Syrup (2013)

ক্যাটাগরিঃ Comedy, Drama, Romance
IMDB রেটিংঃ ৫.৭
কাহিনী সংক্ষেপঃ একজন সদ্য গ্রাজুয়েট কে একজন কর্পোরেট লেডি Hire করে তাদের পানীয়জল পণ্যটির জন্য দারুন প্রোমোশনাল ক্যাম্পেইন করে দেয়ার জন্য। কিন্তু ঐ জিনিয়াস একটি মিলিয়ন ডলার আইডিয়া দেয় এবং নতুন একটি ব্রান্ড ও কোম্পানি Launch করে। কিন্তু রুমমেট ও চারিপাশের প্রবঞ্চনায় সব ক্রেডিট অারেকজন নিয়ে নেয়, এমনকি রয়ালটি ও। আইডিয়া চুরি ও কর্পোরেট এসপিওনাজের কঠিন মুভি। মার্কেটিং এ যারা জব করেন বা পড়েন, তাদের জন্য একটি মাস্ট ওয়াচ মুভি।
কি চুরি করেঃ নতুন Launch করা একটি ব্রান্ডের রয়ালটি ও অনেক গুরুত্বপূর্ণ Brand Secrets।
কে চুরি করেঃ Scat

তো বন্ধুরা, এই বিখ্যাত Industrial Espionage/Corporate Spying মুভিগুলোর মধ্যে কার কোন মুভিটি ভালো লেগেছে তা কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না কিন্তু। পর্ব ০২ শীঘ্রই পোস্ট করা হবে।
বিঃদ্রঃ সম্পূর্ণ মতামত লেখকের নিজস্ব। সবার ভালো না ও লাগতে পারে। তাই কমেন্টে গঠনমূলক যুক্তিতর্ক আশা করছি। কেউ আবার ব্যক্তিগতভাবে নিবেন না ব্যাপারটাকে। ধন্যবাদ।

About the Author: Amar Subtitle

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *